অনেক দিন মাংস সংরক্ষণ করা যায় যেভাবে

নতুনেরকথা ডেস্ক:

কুরবানির পর পরই মাংস সংরক্ষণ নিয়ে তাড়াহুড়া শুরু হয়। আর এতে অনেকেই সঠিকভাবে মাংস সংরক্ষণ করতে পারেন না। তবে কিছু কৌশল এবং আগে থেকেই পরিকল্পনা করে রাখলে এ ধরনের সমস্যা হবে না

দেখে নিন মাংস সংরক্ষণ করবেন যেভাবে

* পশু জবাইয়ের সঙ্গে সঙ্গে মাংস ফ্রিজে না রাখাই ভালো। কারণ, এসময়ে মাংস কিছুটা গরম থাকে। মাংসের তাপমাত্রা স্বাভাবিক হওয়ার পরে ফ্রিজে সংরক্ষণ করা উচিত।

* মাংস সংরক্ষণ করার আগে অবশ্যই অতিরিক্ত রক্ত ধুয়ে পরিষ্কার করে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। পানি পুরোপুরি ঝরে গেলে পরিষ্কার ব্যাগে ভরে মাংস সংরক্ষণ করতে হবে।

* মাংস সংরক্ষণের জন্য অবশ্যই ফ্রিজ পরিষ্কার করে নিতে হবে। তাহলে ফ্রিজে জমে থাকা ময়লা ও জীবাণুর কারণে মাংসের গুনাগুণ নষ্ট হবে না।

* ফ্রিজের সব বরফ গলিয়ে রাখা যাবে না। ফ্রিজ পরিষ্কারের পরে ফ্রিজে আবার বরফ জমিয়ে নিতে হবে। এতে মাংস দ্রুত ঠাণ্ডা হবে এবং মান ভালো থাকবে।

* মাংস রাখার পরে ফ্রিজের তাপমাত্রা একদম কমিয়ে দিতে হবে। এতে মাংস তাড়াতাড়ি জমবে।

ফ্রিজে জায়গা না থাকলে

* ফ্রিজে মাংস রাখার জায়গা না থাকলে কিছু মাংস জ্বাল দিয়ে রাখুন। প্রতিদিন জ্বাল দিলে অন্তত চার থেকে পাঁচ দিন মাংস ভালো থাকবে। বিশেষ করে মাংসে চর্বির পরিমাণ বেশি থাকলে মাংস বহুদিন এভাবে সংরক্ষণ করা যায় এবং খেতেও বেশ ভালো লাগে।

* রোদে শুকিয়েও মাংস সংরক্ষণ করা যায়। এই পদ্ধতিতে মাংস ছোট টুকরা করে কেটে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন কোনও চর্বি না থাকে। একটি তারে মাংস গেঁথে কড়া রোদে ৬/৭ দিন শুকিয়ে নিতে হবে। এতে মাংসের সব পানি শুকিয়ে যাবে। এই পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা মাংস রান্না করার আগে হালকা গরম পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখতে হয়।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares