ঢাকা ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মতলবে মাদ্রাসা ছাত্রের মস্তক বিহীন লাশ উদ্ধারের ঘটনায় আটক ১, মস্তক উদ্ধার

  • আপডেট: ১১:৪৮:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধি॥
চাঁদপুরে মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়নের নন্দীখোলা সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সোহেল রানা (১৭) এর মস্তক বিহীন লাশ সোমবার বিকেলে উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সাইফুল ইসলাম মতলব দক্ষিণ থানায় মামলা হত্যা মামলা দায়ের করে। নিহত সোহেল ওই গ্রামের জমির হোসেনের ছেলে। মঙ্গলবার ভোরে মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশ মাদ্রাসা ছাত্রের মস্তক পুকুরের কুচুরি পানার ভেতর থেকে উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় ১ জনকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ রাতেই উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে সোমবার দিবাগত রাত ২টায় ফরহাদ হোসেন নামে এক ঘাতককে আটক করে। আটক ফরহাদ উপজেলার একই গ্রামের জসিমউদ্দিনের ছেলে।

আটক ফরহাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার ভোরে মাদ্রাসা ছাত্র সোহেলেকে জবাইয়ে ব্যবহৃত চুরি ও ঘটনাস্থলের পাশের পুকুরের কচুরিপানার ভেতর থেকে মস্তক উদ্ধার করে।

মঙ্গলবার সকালে নিহত সোহেলের মৃতদেহ চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে। সোমবার রাতে ডিএসবি ও পিবিআই ঘটনাস্থলে গিয়ে বিভিন্ন আলমত সংগ্রহ করেছে।

নিহত সোহেল রানার মা সামছুন নাহার জানান, আমার ছেলে রাতের খাবার খেয়ে পাশের হাজী বাড়ীর খৎনা অনুষ্ঠানে যাবে বলে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। সেখানে তার বড় ভাইও খৎনা অনুষ্ঠানের গান বাজনা শুনে রাত ২টার সময় ঘরে ফিরে। সোহেল রানা তখন ঘরে ফিরে নি। তার ভাই বলে, এসে পড়বে বলে সবাই ঘুমিয়ে পড়ি। সকালেও সোহেল ঘরে না ফিরায় আমি আশ-পাশে খোঁজ খবর নেই।

সোহেলর বাবা জমির হোসেন জানান, অনেক খোঁজাখুজি করে না পেয়ে ঐ দিন বেলা ১২টার দিকে আমি ও আমার শ্যালক আবুল কালামসহ তার পরিত্যক্ত নতুন বাড়ীতে খোঁজ করতে যাই। সেখানে ঘরে তাকে না পেয়ে পার্শ্ববর্তী পুকুর পাড়ের দিকে দৃষ্টি দিলে পোষাক পরিহিত দেহ পড়ে আছে। ওখানে গিয়ে দেখতে পাই যে আমার সোহেলের মস্তকবিহীন নিথর দেহটাই শুধু পড়ে আছে। আমার ডাক চিৎকারে আশ-পাশের লোকজন এসে ভীড় জমায়।

বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়। পরে থানা পুলিশ সোহেলের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে মতলব দক্ষিণ পুলিশসহ রাতে চাঁদপুর থেকে ডিএসবি, পিবিআই তদন্ত কাজে অংশ নেয়।

মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ স্বপন কুমার আইচ বলেন, সোহেলের মামা আবুল কালাম সোহেলকে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়েছে। ওই মোবাইলটির জন্য ঘাতক ফরহাদ রবিবার দিবাগত রাত ৩টার সময় একটি অনুষ্ঠান থেকে ফেরার সময় কৌশলে পুকুর পাড়ে নিয়ে জবাই করে হত্যা করে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি নিয়ে যায়। আমরা উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে চিহ্নিত করে ফরহাদকে আটক করেছি। সোহেলের ব্যবহৃত মোবাইলটিও উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ঘাতককে আদালতে প্রেরণ করে তার সাথে আর কেউ ছিলকিনা রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

মতলবে মাদ্রাসা ছাত্রের মস্তক বিহীন লাশ উদ্ধারের ঘটনায় আটক ১, মস্তক উদ্ধার

আপডেট: ১১:৪৮:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধি॥
চাঁদপুরে মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়নের নন্দীখোলা সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সোহেল রানা (১৭) এর মস্তক বিহীন লাশ সোমবার বিকেলে উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সাইফুল ইসলাম মতলব দক্ষিণ থানায় মামলা হত্যা মামলা দায়ের করে। নিহত সোহেল ওই গ্রামের জমির হোসেনের ছেলে। মঙ্গলবার ভোরে মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশ মাদ্রাসা ছাত্রের মস্তক পুকুরের কুচুরি পানার ভেতর থেকে উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় ১ জনকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ রাতেই উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে সোমবার দিবাগত রাত ২টায় ফরহাদ হোসেন নামে এক ঘাতককে আটক করে। আটক ফরহাদ উপজেলার একই গ্রামের জসিমউদ্দিনের ছেলে।

আটক ফরহাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার ভোরে মাদ্রাসা ছাত্র সোহেলেকে জবাইয়ে ব্যবহৃত চুরি ও ঘটনাস্থলের পাশের পুকুরের কচুরিপানার ভেতর থেকে মস্তক উদ্ধার করে।

মঙ্গলবার সকালে নিহত সোহেলের মৃতদেহ চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে। সোমবার রাতে ডিএসবি ও পিবিআই ঘটনাস্থলে গিয়ে বিভিন্ন আলমত সংগ্রহ করেছে।

নিহত সোহেল রানার মা সামছুন নাহার জানান, আমার ছেলে রাতের খাবার খেয়ে পাশের হাজী বাড়ীর খৎনা অনুষ্ঠানে যাবে বলে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। সেখানে তার বড় ভাইও খৎনা অনুষ্ঠানের গান বাজনা শুনে রাত ২টার সময় ঘরে ফিরে। সোহেল রানা তখন ঘরে ফিরে নি। তার ভাই বলে, এসে পড়বে বলে সবাই ঘুমিয়ে পড়ি। সকালেও সোহেল ঘরে না ফিরায় আমি আশ-পাশে খোঁজ খবর নেই।

সোহেলর বাবা জমির হোসেন জানান, অনেক খোঁজাখুজি করে না পেয়ে ঐ দিন বেলা ১২টার দিকে আমি ও আমার শ্যালক আবুল কালামসহ তার পরিত্যক্ত নতুন বাড়ীতে খোঁজ করতে যাই। সেখানে ঘরে তাকে না পেয়ে পার্শ্ববর্তী পুকুর পাড়ের দিকে দৃষ্টি দিলে পোষাক পরিহিত দেহ পড়ে আছে। ওখানে গিয়ে দেখতে পাই যে আমার সোহেলের মস্তকবিহীন নিথর দেহটাই শুধু পড়ে আছে। আমার ডাক চিৎকারে আশ-পাশের লোকজন এসে ভীড় জমায়।

বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়। পরে থানা পুলিশ সোহেলের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে মতলব দক্ষিণ পুলিশসহ রাতে চাঁদপুর থেকে ডিএসবি, পিবিআই তদন্ত কাজে অংশ নেয়।

মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ স্বপন কুমার আইচ বলেন, সোহেলের মামা আবুল কালাম সোহেলকে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল দিয়েছে। ওই মোবাইলটির জন্য ঘাতক ফরহাদ রবিবার দিবাগত রাত ৩টার সময় একটি অনুষ্ঠান থেকে ফেরার সময় কৌশলে পুকুর পাড়ে নিয়ে জবাই করে হত্যা করে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি নিয়ে যায়। আমরা উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে চিহ্নিত করে ফরহাদকে আটক করেছি। সোহেলের ব্যবহৃত মোবাইলটিও উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ঘাতককে আদালতে প্রেরণ করে তার সাথে আর কেউ ছিলকিনা রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।