ঢাকা ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মহিলাদের মসজিদে নয় ঘরে নামাজ পড়াই উত্তম: আব্দুর রহমান আস-সুদাইস

  • আপডেট: ০৪:২৯:১৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০১৯

ইসলামী ডেস্ক:

মুসলিম নারীদের জন্য মসজিদ থেকে ঘরে নামাজ পড়া অধিক উত্তম বলে মন্তব্য করেছেন পবিত্র মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববীর প্রেসিডেন্ট জেনারেল ড. আব্দুর রহমান বিন আব্দুল আজিজ আস-সুদাইস।

তারাবী পূর্ব পবিত্র বাইতুল্লাহ শরীফে সমাগত মুসল্লিদেরকে উদ্দেশ্য করে শায়েখ সুদাইস বলেন, নারীদের যদি মসজিদে নামাজ আদায় করতেই হয় তবে তাঁরা কখনই পুরুষদের সঙ্গে এক কাতারে মিশে থাকবেনা। তাঁদের জন্য মসজিদের নির্ধারিত কাতারগুলিতেই তাঁরা নামাজ আদায় করবে।

তিনি বলেন, আমাদের বোন মুসলিম নারীদের জন্য একটি আহবান করছি, যে সকল মুসলিম রমণীগণ বাইতুল্লাহ শরীফে নামাজ আদায়ের জন্য আসেন, অবশ্যই এটা তাঁদের জন্য কল্যাণকর এবং অনেক সাওয়াব অর্জনের মাধ্যম। কিন্তু তাঁদের উচিৎ বাইতুল্লাহ শরীফের সম্মান ও আদব রক্ষার প্রতি আগ্রহী হওয়া। লজ্জা ও শালীনতা বজায় রেখে সম্পূর্ণ শরয়ী পর্দা ও নিজের আব্রুর হেফাজতের প্রতি লক্ষ্য রেখে তাঁদের মসজিদে অবস্থান করা।

হাদিসের উদৃতি দিয়ে হারামাইনের ইমাম ও খতীব বলেন, আল্লাহর হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, আল্লাহর বান্দীদেরকে মসজিদে আসতে বাধা দিও না, কিন্তু তাঁদের ঘরই তাঁদের (ইবাদতের) জন্য উত্তম, (আর যদি বের হয়ই) তাহলে তাঁরা যেন সুগন্ধি মাখানো এবং সৌন্দর্য প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকে।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

গরু-ছাগলে ভরে গেছে হাট, তবে নেই ক্রেতা

মহিলাদের মসজিদে নয় ঘরে নামাজ পড়াই উত্তম: আব্দুর রহমান আস-সুদাইস

আপডেট: ০৪:২৯:১৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০১৯

ইসলামী ডেস্ক:

মুসলিম নারীদের জন্য মসজিদ থেকে ঘরে নামাজ পড়া অধিক উত্তম বলে মন্তব্য করেছেন পবিত্র মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববীর প্রেসিডেন্ট জেনারেল ড. আব্দুর রহমান বিন আব্দুল আজিজ আস-সুদাইস।

তারাবী পূর্ব পবিত্র বাইতুল্লাহ শরীফে সমাগত মুসল্লিদেরকে উদ্দেশ্য করে শায়েখ সুদাইস বলেন, নারীদের যদি মসজিদে নামাজ আদায় করতেই হয় তবে তাঁরা কখনই পুরুষদের সঙ্গে এক কাতারে মিশে থাকবেনা। তাঁদের জন্য মসজিদের নির্ধারিত কাতারগুলিতেই তাঁরা নামাজ আদায় করবে।

তিনি বলেন, আমাদের বোন মুসলিম নারীদের জন্য একটি আহবান করছি, যে সকল মুসলিম রমণীগণ বাইতুল্লাহ শরীফে নামাজ আদায়ের জন্য আসেন, অবশ্যই এটা তাঁদের জন্য কল্যাণকর এবং অনেক সাওয়াব অর্জনের মাধ্যম। কিন্তু তাঁদের উচিৎ বাইতুল্লাহ শরীফের সম্মান ও আদব রক্ষার প্রতি আগ্রহী হওয়া। লজ্জা ও শালীনতা বজায় রেখে সম্পূর্ণ শরয়ী পর্দা ও নিজের আব্রুর হেফাজতের প্রতি লক্ষ্য রেখে তাঁদের মসজিদে অবস্থান করা।

হাদিসের উদৃতি দিয়ে হারামাইনের ইমাম ও খতীব বলেন, আল্লাহর হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, আল্লাহর বান্দীদেরকে মসজিদে আসতে বাধা দিও না, কিন্তু তাঁদের ঘরই তাঁদের (ইবাদতের) জন্য উত্তম, (আর যদি বের হয়ই) তাহলে তাঁরা যেন সুগন্ধি মাখানো এবং সৌন্দর্য প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকে।