ঢাকা ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জ্বালাও-পোড়াও ভাংচুরকারীদের দেশের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে : মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি

  • আপডেট: ০১:০৯:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ অগাস্ট ২০১৯

হাজীগঞ্জে দিনব্যাপি বিভিন্ন উন্নয়ণমূলক কাজের উদ্বোধন

গাজী মহিনউদ্দিন/রেজাউল করিম নয়ন:
মুক্তিযুদ্ধের ১নং সেক্টর কমান্ডার, চাঁদপুর-৫ আসনের সংসদ সদস্য মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। তারা কখনোই লুটপাট জ্বালাও-পোড়াও পছন্দ করেনা। যারা জ্বালাও-পোড়াও ভাংচুর করে জনগন তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপরে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের বলাখাল চন্দ্রবান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের উদ্বোধন শেষে বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, জামায়াত বিএনপি কখনোই ক্ষমতার স্বাদ পাবেনা। বাংলার জনগণ তাদের সকল কাজ প্রত্যাখ্যান করছে এবং করবে। তারা যেখানে আছে, সেখান থেকে ক্ষমতার মসনদ দেখা স্বপ্ন বৈই কিছুই না।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদের মধ্য থেকেই বাংলার প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, স্পিকার ও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবে। তোমরা পড়ালেখা করে বড় হয় দেশ সেবাই আত্মনিয়োগ করবে। এটাই তোমাদের কাছে আমাদের চাওয়া পাওয়া।

তিনি বলেন শিক্ষা হতে হবে গণমুখী, বাস্তবমুখী এবং জনসভার উদ্দেশ্যে। মনে রাখবে তোমরা একদিন উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে অন্যদেরও উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে সহযোগিতা করবে। তোমাদের প্রতি তোমাদের মা-বাবার অনেক আশা-আকাঙ্ক্ষা রয়েছে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে তাদের সে আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাবে।

তিনি হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তির উন্নয়ন নিয়ে বলেন, ১৯৯৬ সালে আমি যখন এমপি হয়, তখন এ দু’উপজেলায় মাত্র ৫ কিলোমিটার সড়ক পাকা ছিল। এখন সাড়ে ৩’শ কিলোমিটার সড়ক পাকা। ৫’শর মতো প্রাইমারী স্কুল, কলেজ, হাই স্কুল, মাদরাসা ভবন পাকা করা হয়েছে। যে ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি সেতুও ছিলনা, এখন সেখানে ৮টি সেতু হয়েছে।

তিনি বলেন, হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি উপজেলা এখন শতভাগ বিদ্যুতায়িত এলাকা। বিদ্যুতের জন্য হা-হা-কার নেই। এ সবগুলোই সম্ভব হয়েছে জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্ষমতায় থাকার কারণে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য অধ্যাপক আবদুর রশিদ মজুমদার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গাজী মাইনুদ্দীন, পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আ. স. ম মাহবুব-উল আলম লিপন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বৈশাখী বড়ুয়া, জেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ রোটা. আহসান হাবিব অরুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সমীর লাল দত্ত, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক মুরাদ, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ সৈয়দ আহমদ খসরু, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-২ হাজী জসিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মির্জা শিউলি পারভীন মিলি, ১নং রাজারগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হাদী, ২নং বাকিলা ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউছুফ পাটওয়ারী, ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মানিক প্রধানিয়া, ৫নং সদর ইউপি চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান মীর, ৭নং বড়কুল ইউপি চেয়ারম্যান গাজী মনির, ৮নং হাটিলা ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা দুলাল, ৯নং গন্ধর্ব্যপুর ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মিলিটারী, ১০নং গন্ধর্ব্যপুর ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন বাচ্চু, ১১নং হাটিলা পশ্চি ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন লিটু, দ্বাদশ গ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আনোয়ারুল হক হেলাল, পৌর মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ফেরদৌস আকতার, ৯নং গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি কাজী নুরুর রহমান বেলাল, সাধারন সম্পাদক কাজী ফয়েজ আহমেদ, ৪নং কালচোঁ দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হাফেজ শাহজালাল, রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আনিছুর রহমান, নেছারাবাদ ছালেহিয়া ফাযিল মাদরাসার সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামীলীগ নেত্রী মুক্তা বেগম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুদ ইকবাল, পৌর যুবলীগের আহবায়ক ও ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক হায়দার পারভেজ সুজন, যুগ্ম আহবায়ক তাজুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন, রামপুর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবায়েদুর রহমান খোকন বলি, সাধারন সম্পাদক আবু ইউছুফ গাজী মোহন, পৌর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদি হাছান রাব্বি প্রমূখ।
একই দিন মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ত্রিতল ভবন, নেছারাবাদ ছালেহিয়া ফাযিল মাদরাসার একতলা ভবন ও কাকৈরতলা জনতা কলেজের ৪তলা ভবনের উদ্বোধন করেন।

একই দিন মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ত্রিতল ভবন, নেছারাবাদ ফাযিল মাদরাসার একতলা ভবন ও কাকৈরতলা জনতা কলেজের ৪তলা ভবনের উদ্বোধন করেন।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি’র ঈদ শুভেচ্ছা

জ্বালাও-পোড়াও ভাংচুরকারীদের দেশের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে : মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি

আপডেট: ০১:০৯:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ অগাস্ট ২০১৯

হাজীগঞ্জে দিনব্যাপি বিভিন্ন উন্নয়ণমূলক কাজের উদ্বোধন

গাজী মহিনউদ্দিন/রেজাউল করিম নয়ন:
মুক্তিযুদ্ধের ১নং সেক্টর কমান্ডার, চাঁদপুর-৫ আসনের সংসদ সদস্য মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। তারা কখনোই লুটপাট জ্বালাও-পোড়াও পছন্দ করেনা। যারা জ্বালাও-পোড়াও ভাংচুর করে জনগন তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপরে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের বলাখাল চন্দ্রবান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের উদ্বোধন শেষে বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, জামায়াত বিএনপি কখনোই ক্ষমতার স্বাদ পাবেনা। বাংলার জনগণ তাদের সকল কাজ প্রত্যাখ্যান করছে এবং করবে। তারা যেখানে আছে, সেখান থেকে ক্ষমতার মসনদ দেখা স্বপ্ন বৈই কিছুই না।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদের মধ্য থেকেই বাংলার প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, স্পিকার ও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবে। তোমরা পড়ালেখা করে বড় হয় দেশ সেবাই আত্মনিয়োগ করবে। এটাই তোমাদের কাছে আমাদের চাওয়া পাওয়া।

তিনি বলেন শিক্ষা হতে হবে গণমুখী, বাস্তবমুখী এবং জনসভার উদ্দেশ্যে। মনে রাখবে তোমরা একদিন উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে অন্যদেরও উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে সহযোগিতা করবে। তোমাদের প্রতি তোমাদের মা-বাবার অনেক আশা-আকাঙ্ক্ষা রয়েছে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে তাদের সে আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাবে।

তিনি হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তির উন্নয়ন নিয়ে বলেন, ১৯৯৬ সালে আমি যখন এমপি হয়, তখন এ দু’উপজেলায় মাত্র ৫ কিলোমিটার সড়ক পাকা ছিল। এখন সাড়ে ৩’শ কিলোমিটার সড়ক পাকা। ৫’শর মতো প্রাইমারী স্কুল, কলেজ, হাই স্কুল, মাদরাসা ভবন পাকা করা হয়েছে। যে ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি সেতুও ছিলনা, এখন সেখানে ৮টি সেতু হয়েছে।

তিনি বলেন, হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি উপজেলা এখন শতভাগ বিদ্যুতায়িত এলাকা। বিদ্যুতের জন্য হা-হা-কার নেই। এ সবগুলোই সম্ভব হয়েছে জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্ষমতায় থাকার কারণে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য অধ্যাপক আবদুর রশিদ মজুমদার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক গাজী মাইনুদ্দীন, পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আ. স. ম মাহবুব-উল আলম লিপন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বৈশাখী বড়ুয়া, জেলা আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ রোটা. আহসান হাবিব অরুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সমীর লাল দত্ত, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক মুরাদ, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ সৈয়দ আহমদ খসরু, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-২ হাজী জসিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মির্জা শিউলি পারভীন মিলি, ১নং রাজারগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হাদী, ২নং বাকিলা ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউছুফ পাটওয়ারী, ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মানিক প্রধানিয়া, ৫নং সদর ইউপি চেয়ারম্যান সফিকুর রহমান মীর, ৭নং বড়কুল ইউপি চেয়ারম্যান গাজী মনির, ৮নং হাটিলা ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা দুলাল, ৯নং গন্ধর্ব্যপুর ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মিলিটারী, ১০নং গন্ধর্ব্যপুর ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন বাচ্চু, ১১নং হাটিলা পশ্চি ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন লিটু, দ্বাদশ গ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আনোয়ারুল হক হেলাল, পৌর মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ফেরদৌস আকতার, ৯নং গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি কাজী নুরুর রহমান বেলাল, সাধারন সম্পাদক কাজী ফয়েজ আহমেদ, ৪নং কালচোঁ দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হাফেজ শাহজালাল, রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আনিছুর রহমান, নেছারাবাদ ছালেহিয়া ফাযিল মাদরাসার সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামীলীগ নেত্রী মুক্তা বেগম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুদ ইকবাল, পৌর যুবলীগের আহবায়ক ও ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক হায়দার পারভেজ সুজন, যুগ্ম আহবায়ক তাজুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন, রামপুর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবায়েদুর রহমান খোকন বলি, সাধারন সম্পাদক আবু ইউছুফ গাজী মোহন, পৌর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদি হাছান রাব্বি প্রমূখ।
একই দিন মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ত্রিতল ভবন, নেছারাবাদ ছালেহিয়া ফাযিল মাদরাসার একতলা ভবন ও কাকৈরতলা জনতা কলেজের ৪তলা ভবনের উদ্বোধন করেন।

একই দিন মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ত্রিতল ভবন, নেছারাবাদ ফাযিল মাদরাসার একতলা ভবন ও কাকৈরতলা জনতা কলেজের ৪তলা ভবনের উদ্বোধন করেন।