• ঢাকা
  • শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২ মে, ২০২৪
সর্বশেষ আপডেট : ২ মে, ২০২৪

মাঠ পর্যায়ে আমার নেতা-কর্মীদের বিভিন্নভাবে হুমকী-ধমকী প্রদান করা হচ্ছে

অনলাইন ডেস্ক
[sharethis-inline-buttons]

হাজীগঞ্জে সংবাদকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেছেন ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ¦ হেলালউদ্দিন মিয়াজী। বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি হাজীগঞ্জ বাজারস্থ তার অফিসে সংবাদকর্মীদের সাথে মতবিনিময়সভায় অভিযোগ করেন গত কয়েক দিন ধরে টেলিফোনে মাঠ পর্যায়ে আমার কর্মী সমর্থকদের একটি পক্ষ ফোন করে হুমকী-ধমকী প্রদান করে আমার পক্ষে নির্বাচন করতে নিষেধ করছে। বিষয়টি দূঃখজনক।

তিনি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে নির্বাচন মুখী মানুষ ছিলাম না। আমি অতিতে দল ও দলের অনেক প্রার্থীর নির্বাচন করেছি। কিন্তু নিজে কখনো নির্বাচন করার চিন্তা আমি করিনি।উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অন্যান্য যারা প্রার্থী হয়ে আসছেন। এর আগে থেকে কে প্রার্থী হবেন বা কারা প্রার্থী হবেন না। এ বিষয় নিয়ে বিভিন্নভাবে আমাদের মধ্যে অনেক আলাপ আলোচনা হয়েছে। আমরা পর্যালোচনা করেছি।

আমার চেষ্টা ছিল, যদি আরও কেউ দলের মধ্যে যেহেতু এটি নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে। সেক্ষেত্রে যেই একজন ভালো প্রার্থী আসবে আমরা হয়তো একজন ভালো প্রার্থীকে বেছে নিয়ে নির্বাচন করবো। যাতে করে তিনি বিজয়ী হয়ে আসলে উপজেলা সর্বস্তরের জনগণের জন্য একটি সুন্দর পরিবেশ তৈরি করতে রাখতে পারেন। মানুষ যেন তার মনের কথাগুলো বা সুবিধা-অসুবিধার কথা বলার সুযোগ পায়।

আমরা ইতিমধ্যে দেখেছি আমি ছাড়াও আরও দুইজন প্রার্থী রয়েছে। আর কোন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য এগিয়ে আসে নাই। সেজন্য আমি প্রার্থী হয়েছি। জনগণ যদি মনে করে অন্যান্য প্রার্থীর তুলনায় আমর যোগ্যতা আছে তাহলে আমাকে নির্বাচতি করলে এ উপজেলাকে একটি সুন্দর সকল মানুষের জন্য একটি গ্রহণযোগ্য প্রতিষ্ঠান করার জন্য আমার চেষ্টা অব্যাহৃত রাখবো। যাতে করে সকলে সন্তুষ্ট থাকে।

আমি সকলের সহযোগিতা কামনা করি। প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ আপনারা জাতির বিবেক। আপনাদের কাছ থেকে মানুষ সত্যটা জানবে। মানুষ যোগ্য প্রার্থী বাছাই করার সুযোগ পাবে। এ নির্বাচনটি আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনা একটি নির্দলীয়, নিরপেক্ষ জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য এবং মানুষ যাতে স্বস্তঃপূর্ত তাদের মনের মতো প্রার্থীকে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত করতে পারে। সব মহেলই তিনি এ নির্দেশ দিয়েছেন।

এরপরেও অনেকে এ নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে। শুধু চেষ্টা নয়, আমি এ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার পিছনে ইউনিয়ন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ আমাকে বিভিন্ন দেনদরবার করে এবং অন্যান্য প্রার্থীদের সাথে দেনদরবার করে আমাকে সিদ্বান্ত দিয়েছে। আপনাকে নির্বাচনটা করতে হবে। তাই আমি অনেক ভেবে চিন্তে সিদ্বান্ত নিয়েছি, আমি নির্বাচন করবো।

আমি মাননীয় সংসদ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তমের সাথে যোগাযোগ করেছি, ওনার কাছে দোয়া চেয়েছি। ওনি বলেছেন, ব্যক্তিগতভাবে আমার কোন প্রার্থী নেই। তোমরা যারা নির্বাচন করবে, এরমধ্যে জনগণ যাকে ভোট দিবে, সে আমার সাথে কাজ করবে। এ ব্যাপারে আমার কোন আপত্তি নেই। আমি সেই আশ^াস পেয়ে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। আমি এখন সকলের সহযোগিতা কামনা করি।

আমি কোন রকমের অন্যায়, অবৈধ কোন সুযোগ সুবিধা নিয়ে বিজয়ী হতে চাই না। জনগণ যদি ভোট দেয় আমি নির্বাচিত হবো। আমার থেকে যদি অন্য কাউকে ভালো মনে করে তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে। আমি তাদেরকে স্বাগত জানাবো। আর আমি যদি নির্বাচিত হয়ে আসতে পারি, সম্পূর্ন সততার মধ্যে অনিয়মের উর্ধ্বে দল-মত নির্বিশেষে সকল মানুষের জন্য কাজ করবো।

আজকে প্রতীক বরাদ্দ হয়েছে, আমি আনারস প্রতীক পেয়েছি। আমার নেতাকর্মীদের মধ্যে যারা আমাকে উৎসাহ এবং সাহস দিয়ে এ নির্বাচন করার জন্য আমাকে মাঠে এনেছে, গত দুইদিন যাবৎ তাদেরকে বিভিন্ন রকমের হুমকিÑধমকি ও বিভিন্ন রকমের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাদেরকে আমার কাছ থেকে দুরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। আমি আপনাদের কাছে অঙ্গিকার করি, আমি জনগণের প্রার্থী হয়ে এসেছি। কেউ আমার সাথে থাকবে, থাকবেনা। এই চিন্তা আমি মাথা থেকে ছেড়ে দিয়েছি। সকলের সহযোগিতায় জনগণ যদি আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে, আমি শেষ মূহুত্ব পর্যন্ত আপনাদের সাথে থাকবো। কোন হুমকি-ধমকি আমাকে সরাতে পারবেনা।

আমি আপনাদের মাধ্যমে উপজেলার সকলের মানুষের কাছে ভোট প্রার্থণা করছি। আমি যদি নির্বাচিত হই, তাহলে আমি আল্লাহ সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য আপনাদের হয়ে সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করবো।

সংবাদকর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধ আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন বতু মিজি, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলম, বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলাম, চাঁদপুর জেলা তাঁতী লীগের সাবেক সভাপতি ইঞ্জি, মোখলেছুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা আহসান উল্যাহ মৃধা, জহির হোসেন প্রধানীয়া, জাকির মিয়া, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, ফখরুল, নুর মোহাম্মদ, যুবলীগ নেতা রিয়াদ বলি, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এবায়েদুর রহমান খোকন বলি, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন জীবন, ফরহাদ প্রমূখ।

Sharing is caring!

[sharethis-inline-buttons]

আরও পড়ুন

  • রাজনীতি এর আরও খবর
error: Content is protected !!