• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
সর্বশেষ আপডেট : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২

প্রধানমন্ত্রীর কথাও শুনছেনা পুলিশ, আমাদেরকে দলীয় কর্মসূচি পালনে বাঁধা দেয়া হচ্ছে ইঞ্জি. মমিনুল হক

অনলাইন ডেস্ক
[sharethis-inline-buttons]
হাজীগঞ্জে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ইঞ্জি. মমিনুল হক। পাশে জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মাওলানা নজরুল ইসলাম দলীয় নেতৃবৃন্দ।

আমার ছবি তুলে লাভ নেই, রাস্তায় পুলিশের ছবি তুলুন। তারা আমাদের শান্তিপূর্ণ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে নেতাকর্মীদের আসতে দিচ্ছেনা। পথে পথে বাধা দিয়ে তারা আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের ভূমিকা পালন করছে। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাজনৈতিক কোন কর্মসূচীতে বাধা দেওয়া হবে না। কিন্তু গত কয়েকদিনের প্রোগ্রামে পুলিশ বাধা দিচ্ছে। তাহলে কি পুলিশ বাড়াবাড়ি করছে, নাকি তিনি (প্রধানমন্ত্রী) মিথ্যা কথা বলেছেন?
সংবাদকর্মীদের উদ্দেশ্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি উপজেলা বিএনপির প্রধান সমন্বয়ক ইঞ্জি. মমিনুল হক। শনিবার বিকালে পৌরসভাধীন টোরাগড় স্বর্ণকলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বর্ণকলি হাইস্কুল মাঠে বিএনপির ৪৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, আজ আমাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আনন্দমুখর পরিবেশে হাজার হাজার নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে আমরা আমাদের নেতার কথা বলবো, আমরা আমাদের নীতির কথা বলবো, অধিকারের কথা বলবো। কিন্তু আমরা বলতে পারিনা। আমাদের এই সমাবেশ-তো এখানে হওয়ার কথা ছিল না। কিন্তু আমাদেরকে বাধ্য করা হলো, এখানে মিটিং করতে হবে। পুলিশ আমাদেরকে রাস্তায় নামতে দেয় না।

ইঞ্জি. মমিনুল হক বলেন, আমাদেরকে অধিকারের কথা বলতে পারিনা। কারণ আমরা দেখলাম, পুলিশের ক্ষমতা অনেক এবং সীমাহীন। এই সীমাহীন ক্ষমতার ফল আওয়ামী লীগও পাচ্ছে। একজন পুলিশ অফিসার বলছে, আমি বাঘ। একজন বয়োজৈষ্ঠ্য আওয়ামী লীগ নেতার সামনে, তার পুলিশ, তাকেই বলছে, আপনি জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়, আমার ভোটে আপনি নির্বাচিত। সুতরাং আমি যা বলবো, তা হবে। এখানে আপনার কথা হবে না।

তিনি বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের অনেক জনপ্রিয় নেতাদের সাথে কথা বলেছি, তারাও এ অবস্থার অবসান চায়। কিন্তু অবস্থা বেগতিক। সরকারি কর্মকর্তাদের সরকার শাসন করতে পারছেনা। কারণ, আমি যদি ভোট চুরি করে এমপি হই। তাহলে আমিতো প্রশাসন ও পুলিশের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারবোনা। আজকে আওয়ামী লীগের এমপিরা কথা বলতে পারেনা। এ সময় তিনি দূর্ণীতিসহ বিভিন্ন উদাহরণ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।

উপজেলা ও পৌরসভা বিএনপি আয়োজনে এবং উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান মনিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মাওলানা নজরুল ইসলাম। উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এম.এ রহিম পাটওয়ারীর উপস্থাপনায় এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, পৌর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল খায়ের মজুমদার প্রমুখ।

উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ নাফের শাহ্, পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক খোরশেদ আলম ভুট্টু, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক আকতার হোসেন দুলাল, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক হুমায়ুন কবির সুমন, পৌর যুবদলের আহবায়ক মিজানুর রহমান সেলিম, সদস্য সচিব বিল্লাল হোসেন পাটওয়ারী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক বিল্লাল হোসাইন বেলাল, সদস্য সচিব সাইফুল ইসলাম চৌধুরী মিঠু, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক মজিবুর রহমান, সদস্য সচিব ইকবাল সর্দার।

এ সময় উপজেলা মৎস্যজীবী দলের সভাপতি ইমাম হোসেন, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক এস.এম ফয়সাল হোসেন, সদস্য সচিব জুয়েল রানা তালুকদার, পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক আবু ইউছুফ, সদস্য সচিব দ্বীন ইসলাম টগর, পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি রাশেদুল ইসলাম হীরা, সাধারন সম্পাদক সোহেল রানাসহ উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়ন বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের কয়েক শতাধীক নেতাকর্মী ও সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

 

 

Sharing is caring!

[sharethis-inline-buttons]

আরও পড়ুন

  • রাজনীতি এর আরও খবর