ঢাকা ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুরে শিক্ষিকাকে জবাই করে হত্যা করেছে দূর্বৃত্তরা

  • আপডেট: ০২:০৪:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯

মো. মহিউদ্দিন আল আজাদ:
চাঁদপুর শহরের ষোলঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা জয়ন্তী চক্রবর্তীকে (৪৫) গলাকেটে হত্যা করেছে দূবৃত্তরা। রোববার (২১ জুলাই) বিকেল ৫টায় শহরের ষোলঘর ওয়াপদা কলোনীর জরাজীর্ণ ভবনের তৃতীয় তলায় এ ঘটনা ঘটে।
জয়ন্তী চক্রবর্তীর বাড়ি জেলার শাহরাস্তি উপজেলায়। স্বামী অলক গোস্বামীর সঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কলোনীতে তিনি থাকতেন। তার ১ ছেলে ও ২ মেয়ে রয়েছে।

পুলিশ জানায়, বিকেল ৫টায় কয়েকজন শিক্ষার্থী জয়ন্তীর কাছে প্রাইভেট পড়তে যায়। সেখানে জয়ন্তীর গলাকাটা মরদেহ দেখে তারা ৯৯৯ কল দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। বর্তমানে ওই শিক্ষিকার স্বামী ঢাকায় রয়েছেন। তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী।

জয়ন্তীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার তিনি বিদ্যালয় থেকে ছুটি নিয়ে বাসায় ছিলেন। তার স্বামী অলক গোস্বামী ছোট মেয়েকে ভর্তি করাতে ঢাকা গিয়েছেন। তার বড় মেয়ে এশিয়া ইউনিভার্সিটিতে ও একমাত্র ছেলে নটরডেম কলেেেজ অধ্যায়নরত।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও চাঁদপুর সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোস্তফা কামাল জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। তবে কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এখনো জানতে পারিনি।

চাঁদপুর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অনুপ চক্রবর্তী বলেন, ওই শিক্ষিকা বাসায় একা ছিলেন। তিনি শনিবার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে ছুটি নিয়েছেন। ঘটনার সময় তার বাসায় কেউ ছিলনা। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এদিকে, চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. জাহেদ পারভেজ চৌধুরী, পিবিআই’র একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি’র ঈদ শুভেচ্ছা

চাঁদপুরে শিক্ষিকাকে জবাই করে হত্যা করেছে দূর্বৃত্তরা

আপডেট: ০২:০৪:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯

মো. মহিউদ্দিন আল আজাদ:
চাঁদপুর শহরের ষোলঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা জয়ন্তী চক্রবর্তীকে (৪৫) গলাকেটে হত্যা করেছে দূবৃত্তরা। রোববার (২১ জুলাই) বিকেল ৫টায় শহরের ষোলঘর ওয়াপদা কলোনীর জরাজীর্ণ ভবনের তৃতীয় তলায় এ ঘটনা ঘটে।
জয়ন্তী চক্রবর্তীর বাড়ি জেলার শাহরাস্তি উপজেলায়। স্বামী অলক গোস্বামীর সঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কলোনীতে তিনি থাকতেন। তার ১ ছেলে ও ২ মেয়ে রয়েছে।

পুলিশ জানায়, বিকেল ৫টায় কয়েকজন শিক্ষার্থী জয়ন্তীর কাছে প্রাইভেট পড়তে যায়। সেখানে জয়ন্তীর গলাকাটা মরদেহ দেখে তারা ৯৯৯ কল দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। বর্তমানে ওই শিক্ষিকার স্বামী ঢাকায় রয়েছেন। তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী।

জয়ন্তীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার তিনি বিদ্যালয় থেকে ছুটি নিয়ে বাসায় ছিলেন। তার স্বামী অলক গোস্বামী ছোট মেয়েকে ভর্তি করাতে ঢাকা গিয়েছেন। তার বড় মেয়ে এশিয়া ইউনিভার্সিটিতে ও একমাত্র ছেলে নটরডেম কলেেেজ অধ্যায়নরত।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও চাঁদপুর সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোস্তফা কামাল জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। তবে কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এখনো জানতে পারিনি।

চাঁদপুর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অনুপ চক্রবর্তী বলেন, ওই শিক্ষিকা বাসায় একা ছিলেন। তিনি শনিবার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে ছুটি নিয়েছেন। ঘটনার সময় তার বাসায় কেউ ছিলনা। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এদিকে, চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. জাহেদ পারভেজ চৌধুরী, পিবিআই’র একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।