বসন্ত ও গ্রীষ্মকালে যারা করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েছেন তাদের চেয়ে যারা টিকা নেননি, তাদের হাসপাতালে যাওয়ার ঝুঁকি ১০ গুণ এবং মৃত্যুঝুঁকি ১১ গুণ বেশি। গত শুক্রবার (১০সেপ্টেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। এমন তিনটি গবেষণাপত্র সেদিন প্রকাশ করেছে (সিডিসি)। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের।

আলাদা গবেষণার প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনের বিরুদ্ধে অন্য টিকার (ফাইজার-বায়োএনটেক ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা) চেয়ে মডার্নার টিকা বেশি কার্যকর। জুন থেকে আগস্ট পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের নয়টি অঙ্গরাজ্যের হাসপাতাল, জরুরিবিভাগ ও ক্লিনিকের ৩২ হাজার করোনা রোগীর ওপর জরিপ শেষে গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে।

ওই গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনা আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রুখতে মডার্নার টিকা ৯৫ শতাংশ, ফাইজার-বায়োএনটেক ৮০ শতাংশ এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা ৬০ শতাংশ কার্যকারিতা দেখিয়েছে।

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে সিডিসির পরিচালক রচেলে ওয়ালনেস্কি বলেন, মোদ্দাকথা হচ্ছে, আমাদের কাছে বিজ্ঞানসম্মত উপাদান রয়েছে, আমাদের দরকার মহামারির মোড় ঘুরিয়ে দেওয়া। ভ্যাকসিনে কাজ হচ্ছে এবং আমরা নিজেদের কোভিড-১৯’র জটিলতা থেকে সুরক্ষা দেবো।

গত ৯ সেপ্টেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ডেল্টার ধরন ঠেকাতে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পরপরই এই তিনটি গবেষণার রিপোর্ট প্রকাশ করা হলো।

করোনায় যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত ছয় লাখ ৫০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। গত আটদিন ধরে দৈনিক ১৫০০ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে দেশটিতে। স্কুল খোলার পরপর শিশুদের সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যাও অনেক বেশি দেখা যাচ্ছে।

Sharing is caring!