সাগরের ইলিশে সরগরম চাঁদপুরের মৎস্য আড়তগুলোতে। গত ১৯ মে মধ্যরাত থেকে ৩০ জুলাই পর্যন্ত মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির লক্ষে সাগরে ৬৫ দিনের জন্য মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আর এই নিষেধজ্ঞার মধ্যেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ও জেলে সাগরে দেদারচ্ছে ইলিশ শিকার। আর সেই ইলিশ কয়েকদিন মৌজুদ রেখে ট্রলারে করে চাঁদপুর বড়স্টেশনের মৎস্য আড়তে নিয়ে আসা হয়।

এদিকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় রূপালী ইলিশের তেমন দেখা পাচ্ছেনা জেলেরা। এতে করে সাগরের ইলিশেই শেষ ভরসা মৎস্য ব্যবসায়ীদের। অনেকে চাঁদপুরের রূপালি ইলিশ ভেবে সাগরের ইলিশ ক্রয় প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা। দণিাঞ্চলীয় লালচে রঙের ইলিশকে লবণ ও বরফ দিয়ে ঘসে সাদা ও চকচকে করে সেই ইলিশ চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার ইলিশ বলে বিক্রি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা।

ভোলার মনপুরা থেকে বড়স্টেশন মাছঘাটে আসা মৎস্য ব্যবসায়ী মো. মফিজুর রহমান বলেন, ভোলার মনপুরা থেকে প্রায় ৩৫-৪০ মণ মৌজুদকৃত ইলিশ চাঁদপুর মাছঘাটে নিয়ে এসেছি। এই মাছগুলো ভোলার মেঘনার। সাগরের মাছ আমরা বিক্রি করি না। কয়েকদিনের মৌজুদকৃত ইলিশ আনা হয়েছে।

নিঝুম দ্বীপের মৎস্য ব্যবসায়ী বেলাল মাঝি জানান, ঝড়ের কারণে এতো মাছ আনতে পারিনি। ঝড় কমলেও মেঘনা হাতিয়া ও মনপুরায় খুব উত্তাল। এর মধ্যে রিস্ক নিয়েই ৬০ মন মাছ নিয়ে এসেছি। দামও ভালো পেয়েছি। সাগরেতো মাছ ধরা বন্ধ। তাহলে মাছ পেলেন কোথায় এমন প্রশ্নের জবাবে এ ব্যবসায়ী জানান, সাগরে মাছ পাওয়া যায় ৪ মাস। জ্যৈষ্ঠ, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র মাস। বাকী ৮ মাসই সাগরে মাছ ধরা বন্ধ থাকে। নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি আমাদের জানা নেই। সবাই ধরছে তাই আমরাও ধরি।

চাঁদপুর বড়স্টেশন মাছঘাটে আ. ছাত্তার খান ফিস এজেন্টের মৎস্য ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন খান বিপ্লব বলেন, বর্তমান সময়ে পদ্মা-মেঘনার ইলিশ খুবই কম। চাঁদপুরের পদ্মার ১ কেজি ৮শ’ গ্রামের ইলিশ মণ প্রতি ৮০ হাজার ও ১ কেজী সাইজের ইলিশ ১৩শ’ থেতে ১৪শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সাগর এলাকায় কিছু অসাধু জেলে ইলিশ ধরে থাকে, আর সেগুলো চাঁদপুরে নিয়ে আসা হয়। এছাড়া নিষেধাজ্ঞার পূর্বের কিছু ইলিশও এখন আনা হচ্ছে।

এ বিষয়ে চাঁদপুর মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল বাকি বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তন হয়ে ঘণঘণ বৃষ্টিপাত হলে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় ইলিশের দেখা মিলবে। বেশি সময় লাগবে না, হয়তো আর এক দেড় মাস পরেও চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘানায় কাঙ্কিত ইলিশ পাওয়া যাবে।

চাঁদপুরে মাছঘাটে আসা সাগরের ইলিশের প্রসঙ্গে এ মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, সাগর এলাকায় জেলেদের নৌকা ও ট্রলার জব্দ করে রাখা হয়েছে। তারপরেও কিছু অসাধু জেলে সাগরে মাছ শিকার করছে। চাঁদপুর বড়স্টেশন মাছঘাটে কিছু সাগরের ইলিশ আসছে। সেগুলো কি সাগরে নিষেধাজ্ঞা সময়ে ধরছে কিনা তা আমরা খোজ খবর নিচ্ছি।

Sharing is caring!