প্রতি বছরের ন্যায় এবারো দেশের প্রাচীনতম ও ঐতিহাসিক ঐতিহ্যবাহী হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ৩টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে। ঈদের জামায়াত পালনকল্পে মসজিদ কর্তৃপক্ষ বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে ঈদুল ফিতরের প্রথম জামায়াত সকাল সাড়ে ৬টায়, দ্বিতীয় জামায়াত সকাল ৮টায় ও শেষ জামায়াত সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামায়াতের বিশেষ ব্যবস্থাগ্রহণ সম্পর্কে আহমাদ আলী ওয়াক্ফ এস্টেটের (ভারপ্রাপ্ত) মোতাওয়াল্লী প্রিন্স শাকিল আহমেদ সাপ্তাহিক হাজীগঞ্জকে জানান, ‘মুসলিম উম্মাহ’র জন্যে পবিত্র ঈদুল ফিতরের এ দিনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। প্রতিবছরের ন্যায় এবারো ঈদুল ফিতরের জামায়াত আদায়ে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দিক নির্দেশনা মেনে হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে ঈদুল ফিতরের ৩টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, প্রাকৃতিক দূর্যোগ ঝড়-বৃষ্টি নানানদিক থেকে মসজিদে আগত মুসল্লিদের কথা চিন্তা করে এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট সকলের দায়িত্ব বন্টন করা হয়েছে। মুসল্লিদের সুবিধার্থে ও ক্রমাগতভাবে মুসল্লির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ঈদুল ফিতরের জামায়াত প্রাসঙ্গিক সকল সুবিধা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

‘তিনি আরো বলেন, ‘ঈদুল ফিতরের নামাজের সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত রাখার বিষয়ে এরই মধ্যে পল্লীবিদ্যুৎ বিভাগ হাজীগঞ্জকে এবং পৌর মেয়রকে বাজার পরিস্কার পরিছন্ন রাখার ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহায়তা প্রদানের নির্দেশ দিতে তাঁর দপ্তরের সংশ্লিষ্ঠ জনবলকে অনুরোধ জানিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ইনশাআল্লাহ আমরা সবাই মিলে হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের ঈদুল ফিতরের ৩টি জামায়াতকে সুন্দরভাবে শেষ করতে প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

Sharing is caring!