নিজস্ব প্রতিনিধি:

কচুয়ায় এক গৃহবধূকে দারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে এক বখাটে যুবকের বিরুদ্ধে। গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার আশ্রাফপুর ইউনিয়নের চক্রা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

গত বুধবার কচুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন আহত গৃহবধূর স্বামী করিম হোসেন।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে,কচুয়া উপজেলার আশ্রাফপুর ইউনিয়নের চক্রা গ্রামের হঠাৎ বাড়ির আব্দুল করিম সাথে একই বাড়ীর চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিন পরিবারের সাথে দীর্ঘদিন ধরে পূর্ব শত্রুতা জের ধরে বিরোধ চলে আসছে।

গত মঙ্গলবার রাতে গৃহবধূ ফেরদৌস বেগম নিজ ঘরের সামনে মৌসুমি ফসল ধান মেশিনে নেওয়ার সময় হেলাল উদ্দিনের ছেলে বখাটে যুবক শরীফ হোসেন হঠাৎ করে এসে অকর্ত ভাষায় গালাগালি শুরু করলে গৃহবধূ ফেরদৌস বেগম প্রতিবাদ করলে এক পর্যায়ে শরীফ হোসেন তার মা মাদক ব্যবসায়ী শানু বেগম তাদের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে গৃহবধূ ফেরদৌস বেগমের কোপাল ও চোখে এলোপাতাড়ি ভাবে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করলে তার ডাক চিৎকার শুনে স্থানীয়রা দৌড়ে আসলে দ্রুত বখাটে যুবক শরীফ হোসেন পালিয়ে যায়। পরে গৃহবধূকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

২০০৯সালে হেলাল উদ্দিন বাড়ীতে কচুয়া থানার পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে তার পুকুরের থেকে ৫০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে স্বামী হেলাল উদ্দিন স্ত্রী শানু বেগমকে গ্রেফতার করেন। এছাড়া তাদের বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিন পরিবারের এলাকায় না থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মো. মহিউদ্দিন জানান, গৃহবধূ ফেরদৌস বেগম নামে একজনকে কুপিয়ে আহত করেছে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sharing is caring!