দ্বিতীয় মেয়াদে বিপুল ভোটে মতলব পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আওলাদ হোসেন লিটন। ২৮ ফেব্রুয়ারি রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের ২২টি কেন্দ্রে ইভিএম পদ্মতিতে ভোটগ্রহণ হয়। নির্বাচনে ৪৮ হাজার ৩শ’ ৩৯ জন ভোটারের মধ্যে ২২ হাজার ৬শ’ ২৭ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। তন্মধ্যে ২৫টি ভোট বাতিল হয়েছে।

রোববার রাত ৮টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে বেসরকারিভাবে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে নির্বাচিতদের ফলাফলসহ নাম ঘোষণা করেন জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোঃ তোফায়েল হোসেন।

নির্বাচনে মেয়র পদে সর্বোচ্চ ২০ হাজার ৬শ’ ৯৪ ভোট পেয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোঃ আওলাদ হোসেন লিটন (নৌকা) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এনামুল হক বাদল (ধানের শীষ) ভোট পেয়েছেন ৯শ’ ৭৯। যদিও তিনি আরো ছয়দিন আগে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে এই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান। এছাড়া জাতীয় পার্টি মনোনীত মেয়র প্রার্থী দেওয়ান মোহাম্মদ আলাউদ্দিন কবির (লাঙ্গল) ভোট পেয়েছেন ১শ’ ৯৭ এবং ইসলামী আন্দোলনের মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোঃ সফিকুল ইসলাম (হাতপাখা) পেয়েছেন ৭শ’ ৫৭ ভোট।

সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের মরিয়ম ইসলাম (আনারস) ৪ হাজার ৫শ’ ৬৩ ভোট

পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী দিনারা আক্তার বিপ্লবী (অটোরিকশা) পেয়েছেন ৩ হাজার ২শ’ ৪৮ ভোট। ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের জোহরা খাতুন (আনারস) ৩ হাজার ৯শ’ ৫৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাকসুদা আক্তার (জবাফুল) পেয়েছেন ৩ হাজার ৮শ’ ৩১ ভোট। ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের মাইরিন সুলতানা (অটোরিকশা) ৩ হাজার ৪শ’ ৮৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাজেদা বেগম (চশমা) পেয়েছেন ১ হাজার ৬শ’ ৮২ ভোট।

সাধারণ সদস্য (পুরুষ) ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে আবুল বাশার পারভেজ (টেবিলল্যাম্প) ২ হাজার ৯শ’ ২১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ শাহ গিয়াস (ডালিম) পেয়েছেন ১শ’ ৫৫ ভোট। ২নং ওয়ার্ডের মোঃ লিয়াকত আলী সরকার (টেবিলল্যাম্প) ১ হাজার ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ মজিবুর রহমান মন্টু (উটপাখি) পেয়েছেন ৮শ’ ভোট। ৩নং ওয়োর্ডের মোঃ সারওয়ার হোসেন (উটপাখি) ১ হাজার ৭শ’ ৯৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কিশোর কুমার ঘোষ (টেবিলল্যাম্প) পেয়েছেন ৮শ’ ৭ ভোট। ৪নং ওয়ার্ডের মোঃ আনিসুর রহমান আনু (প্রতীক পানির বোতল) ১ হাজার ৫২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ওয়াহিদুজ্জামান মৃধা (ওহিদ) (উটপাখি) পেয়েছেন ৫শ’ ৬০ ভোট। ৫নং ওয়ার্ডের মোঃ ওয়াজ উদ্দিন (উটপাখি) ১ হাজার ২শ’ ৯৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ ফারুক কাজী (ডালিম) পেয়েছেন ১ হাজার ১শ’ ৭ ভোট। ৬নং ওয়ার্ডের মোঃ সাইফুল ইসলাম (পাঞ্জাবি) পেয়েছেন ১ হাজার ১শ’ ৫৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মামুনুর রশিদ (টেবিল ল্যাম্প) পেয়েছেন ৯শ’ ১৫ ভোট। ৭নং ওয়ার্ডের পিন্টু চন্দ্র সাহা (উটপাখি) ১ হাজার ৩শ’ ৯৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ আহিজল মুন্সী (পানির বোতল) পেয়েছেন ৬শ’ ৬৭ ভোট। ৮নং ওয়ার্ডের মোঃ মামুন চৌধুরী (পানির বোতল) ১ হাজার ৪শ’ ৫১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মোহাম্মদ কামাল হোসেন (উটপাখি) পেয়েছেন ৫শ’ ৩০ ভোট। ৯নং ওয়ার্ডের আব্দুল হাই বকাউল (ডালিম) ১ হাজার ৩শ’ ১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ আনোয়ার হাজরা (পাঞ্জাবি) পেয়েছেন ৮৮ ভোট।

Sharing is caring!