আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকেনোয়াখালির কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় পৌর মেয়র কাদের মির্জার আহবানে আধা বেলা হরতাল চলছে। দুপুর ২টা পর্যন্ত এ হরতাল চলবে।

নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারের দাবিতে কোম্পানীগঞ্জে কাদের মির্জার অনুসারিরা এ হরতাল পালন করেন।

এদিকে সকাল থেকে বসুরহাট পৌরসভা এলাকায় কোনো যানবাহন চলাচল করছে না। অধিকাংশ দোকানপাটও বন্ধ রয়েছে। এছাড়া সড়কে কাটা গাছ ফেলে নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ করতে দেখা যায়।

বুধবার দুপুরে বসুরহাট পৌরসভার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে এ হরতালের ডাক দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের আপন ছোটভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আলোচিত আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল কাদের মির্জা।

নোয়াখালী ও ফেনীর অপরাজনীতি বন্ধ, নোয়াখালীর ডিসি, এসপি এবং কোম্পানীগঞ্জের ওসি ও ওসি তদন্তসহ কর্মকর্তাদের প্রত্যাহারের দাবিতে মঙ্গলবার রাত ৮টা থেকে থানার সামনে নেতাকর্মীদের নিয়ে এ অবস্থান ধর্মঘট পালন করেন কাদের মির্জা।

এ সময় কোম্পানীগঞ্জের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, ব্যাংকার ফখরুল ইসলাম রাহাত ও চরকাঁকড়ার ফখরুল ইসলাম সবুজসহ তার অনুসারীদের গ্রেফতারের দাবিও জানান কাদের মির্জা।

এদিকে দাবি পূরণ না হলে আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত আধাবেলা হরতাল চলছে। এদিনও দাবি না মানলে শুক্রবার থেকে সকাল-সন্ধ্যা লাগাতার অবরোধের ডাক দিয়েছেন আলোচিত এ মেয়র।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টেকেরবাজারে আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ তার কিছু অনুসারীকে নিয়ে আবদুল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেন। সমাবেশে সবুজ মেয়র মির্জার বিরুদ্ধে অশালীন বক্তব্য দেন।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ফখরুল ইসলাম সবুজকে আটক করে পরে ছেড়ে দিয়েছে, এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে নিজের নেতাকর্মীদের নিয়ে থানা ঘেরাও করেন কাদের মির্জা। বিক্ষোভকারীরা থানার সামনের সড়কসহ পৌরসভার কয়েকটি সড়ক বাঁশ দিয়ে বন্ধ করে দেন।

Sharing is caring!