সহিংসতা উত্তাপের মধ্যদিয়ে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ ও কচুয়া পৌরসভার ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮ টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়।

প্রথম পর্যায় সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতির ছিলো চোখে পড়ার মতো। কিন্তু নির্বাচনে ভোট ডাকাতির অভিযোগে বিএনপি প্রার্থী ইমাম হোসেন নির্বাচন বর্জন করায় ভোটার উপস্থিতি কমা শুরু হয়।

রোববার ভোট শুরুর দুই ঘন্টা পর সকাল দশটায় ফরিদগঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী ইমাম হোসেন নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

বিএনপির প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, আমার নেতাকর্মীদের উপর হামলা করেছে। আমার নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করেছে। প্রশাসন আমাকে যে আশ্বাস দিয়েছিল একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করার কিন্তু তার কোন কিছুই হয়নি। নির্বাচনী এলাকায় অতিরিক্ত ফোর্স দেয়া হয়েছে কিন্তু সেটি আমাদের ভোটারদের নিরাপত্তা জন্য নয় তা দেয়া হয়েছে ভোট কাটার জন্য।

এদিকে ফরিদগঞ্জের কাছিয়ারা আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে দুই কাউন্সিলর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০জন আহত হয়েছেন। এ সময় কেন্দ্রের পাশে পরপর ৪ টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। এতে গুরুতর আহত কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আলী হায়দার পাঠানকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফরিদগঞ্জের কাছিয়ারা আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রের প্রিজাডিং অফিসার আইয়ুব আলী বলেন, এ কেন্দ্রে ১০ জন কাউন্সিল প্রার্থী। মূলত তাদের কারনেই কেন্দ্রে সহিংসতা ঘটেছে। ভয়ে ভোটার সংখ্যাও কমেছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, কোন বিশৃঙ্খলা বরদাস্ত করা হবে না। আমরা কঠোর অবস্থানে নির্বাচন কার্যক্রম পরিচালনা করছি।

Sharing is caring!