প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যাদের কারণে চলমান প্রকল্পে পরবর্তীতে নতুন আইটেম যোগ করতে হয়, এ কারণে ব্যয় ও মেয়াদ বাড়ে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। তাদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে তিনি এ নির্দেশ দেন। ‘পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পের সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রকল্পটি তৈরির সঙ্গে যারা যুক্ত ছিলেন তাদের খুঁজে বের করুন, কারা জড়িত ছিলেন। শুধু তাই নয়, এদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সেটিও জানাতে হবে।

একনেক বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ’ প্রকল্পটির মূল অনুমোদিত ব্যয় ছিল ৩ হাজার ৯২৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রকল্পে এখন নতুন করে বিভিন্ন কার্যক্রম যোগ করে ২ হাজার ৫৩০ কোটি ৪৩ লাখ টাকা বাড়িয়ে মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৪৫৭ কোটি ১৯ লাখ টাকা। মূল অনুমোদিত মেয়াদ ছিল ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত। এখন সংশোধনীতে তিন বছর বাড়িয়ে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়েছে। এ প্রকল্পের প্রথম সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন- কেন এটি এত নতুন কার্যক্রম যোগ করতে হচ্ছে এবং ব্যয় ও মেয়াদ বাড়াতে হচ্ছে? কারা প্রকল্পটি তৈরির সঙ্গে জড়িত ছিলেন? তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।

এক প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, এ প্রকল্পটির প্রসঙ্গে আলোচনা হলেও এটির পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী সার্বিকভাবে সব প্রকল্পের ক্ষেত্রেই এ নির্দেশনা দিয়েছেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও জানান, প্রকল্প পরিচালকদের (পিডি) প্রকল্প এলাকায় থাকতে হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন- প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ দেওয়ার ক্ষেত্রে দেখতে হবে যাতে একজন প্রকল্প পরিচালক একাধিক প্রকল্পের দায়িত্বে না থাকেন। সেই সঙ্গে তারা যাতে প্রকল্প এলাকায় থাকেন সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

Sharing is caring!