নিজস্ব প্রতিনিধি ॥

মানুষের কল্যাণে কাজ করে নিজেকে উৎসর্গ করে দিতে চান কচুয়া উপজেলার কাদলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ছাত্রনেতা, গরীব অসহায় মানুষের বন্ধু ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী সালাহ উদ্দিন মজুমদার। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা কাদলা ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী সালাহ উদ্দিন মজুমদার আওয়ামী লীগ সরকারের এজেন্ডা বাস্তবায়ন ও ইউনিয়নের অসহায় মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

জানা গেছে, ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী সালাহ উদ্দিন মজুমদার এলাকায় রয়েছে তাঁর অনেক পরিচিত। তিনি একজন রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবেও পরিচিত। শুধু তাই নয়, অসহায় দরিদ্রের বন্ধু বলেও সবার মাঝে পরিচিত। যে কোন সামাজিক কাজে ছুটে আসেন তিনি। বর্তমানে মহামারী করোনা ভাইরাস সারাদেশে যখন লকডাউন থাকার কারণে মানুষের কর্ম উপার্জন বন্ধ হয়ে যাওয়া তখন ওই মুহূর্তে কাদলা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের অসহায় গরীব মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

এমনকি ভালো কাজকে হ্যা এবং খারাপ কাজকে না বলে থাকেন। সবসময় ন্যায়ের পক্ষে এবং অন্যায়ের বিপক্ষে কথা বলেন তিনি।
এভাবেই মানুষের পাশে থাকার কারনে ধীরেধীরে বাড়তে থাকে সমাজে তার জনপ্রিয়তা। জনগণের একটাই কথা তিনি কাদলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে পাল্টে যাবে এই কাদলা ইউনিয়ন। আরও থাকবে না রাস্তাঘাটের কারনে ভোগান্তি। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সর্বক্ষণিক নাগরিকত্ব সেবা পাবে জনগণ।

চেয়ারম্যান প্রার্থী সালাহ উদ্দিন মজুমদার বলেন, কাদলা ইউনিয়ন বাসীর সেবা করা ভাগ্যের ব্যাপার। আমি দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলাম । বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠনে এবং শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে কাজ করে যাচ্ছি। একই সঙ্গে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে গতিশীল করতে নেতা কর্মীদের সাথে নিবিড় সম্পর্ক তৈরি করেছি।

আওয়ামী লীগের উন্নয়ন তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দিতে আমি দলের প্রার্থিতা চাইবো। আমরা একটাই লক্ষ্য, কাদলা ইউনিয়ন উন্নয়নে অবদান রাখা। আলোকিত একটা ইউনিয়ন গঠনে আমিও কাজ করতে চাই।

তিনি আরো বলেন, কেবল নির্বাচনকে সামনে রেখে নয়, দীর্ঘদিন থেকে আমি কাদলা ইউনিয়ন বাসীর বিভিন্ন বিষয়ে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে কাজ করছি। কাজ করতে গিয়ে আমার মনে হয়েছে, কেবল ব্যক্তিগতভাবে তাদের ভাগ্য উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। এজন্য আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে বড় পরিসরে তাদের উন্নয়ন করতে চাই।

Sharing is caring!