মতলব উত্তর ব্যুরো :

মতলব উত্তরে হেরিংবন রাস্তার ইট খুলে নিয়েছেন এক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান। উপজেলার ফতেপুর পুর্ব ইউনিয়নের বারহাতিয়া গ্রামে এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।
মঙ্গলবার দেখা যায়, ফতেপুর পুর্ব ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বারহাতিয়া মেইন রোড হতে গ্রামের ভিতর হয়ে কাঁঠাল বাগান পর্যন্ত ২.৫ কিলোমিটার সড়ক থেকে ইট খুলে নিয়েছে একদল লোক।

গ্রামবাসী জানান, গত কয়েকদিন ধরে ইউপি চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরীর লোকজন এসে ইট খুলে নিচ্ছে। গ্রামবাসী জানতে চাইলে চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলতে বলে তারা।

স্থানীয় নবীর হোসেন, মমিন, অটোচালক মামিন, ইয়াছিন প্রধান ও হারুন প্রধান বলেন, সরকারি রাস্তা থেকে চেয়ারম্যানের লোকজন ইট খুলে নিয়ে যাচ্ছে। আমরা এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তারা বলে আমরা কিছু জানিনা, আজমল চেয়ারম্যান ইট খুলে নিয়ে যেতে বলছে। চেয়ারম্যানের লোকজন এর বেশি কিছু বলেন নি।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান সরকার বলেন, গত ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময়ে আমাদের গ্রামের ২.৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা ইটের হ্যারিংবন কাজ করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়। দুই বছর ধরে আমাদের এই সড়কটি দিয়ে যাতায়াত করছি। কিন্তু হটাৎ করে কয়েকদিন ধরে চেয়ারম্যান ইট খুলে নিয়ে যাচ্ছে।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী সালাউদ্দিন, ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি জয়নাল আবেদীন ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আবুল হাসনাত বলেন, রাস্তার কাজ হয়ে গেলে এটা রাষ্ট্রের সম্পদ হিসেবে রুপান্তরিত হয়ে যায়। এই রাস্তায় বা বাস্তার মালমালে কেউ অবৈধভাবে হাত দিতে পারে না। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোস্তাক কাজী বলেন, এভাবে রাস্তার ইট খুলে নেয়া ঠিক হয়নি। এতে করে আমার ওয়ার্ডের জনগণের চলাচলে অনেক অসুবিধা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করেই আমি ইট খুলে নিয়েছি।
এদিকে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আওরঙ্গজেব বলেন, এ ব্যাপারে আমার সাথে কেউ যোগাযোগ করেনি। রাস্তার ইট নেয়া তো দুরে থাকে, হাত দেয়ার ক্ষমতাই নেই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্নেহাশীষ দাশ বলেন, এ ব্যাপারে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sharing is caring!