মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের জয়ী হওয়ার বিষয়টি অবশেষে স্বীকার করে নিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে ট্রাম্পের অভিযোগ, জো বাইডেন জিতেছেন, তবে জালিয়াতি করে।  রোববার এক টুইটার বার্তায় জো বাইডেনের জয় স্বীকার করার পরক্ষণেই আরেক টুইটে ইউ টার্ন নেন ট্রাম্প। পুরো ব্যাপারটিকে অস্বীকার করে বসেন।

রোববার সকালে ট্রাম্প বাইডেনকে নিয়ে ওই টুইট করার পর সংবাদমাধ্যমে হইচই পড়ে যায়। দেশটির কয়েকটি সংবাদমাধ্যম ‘ট্রাম্প প্রথমবারের মতো জো বাইডেনের জয় স্বীকার করে নিয়েছেন’ বলে খবরও প্রকাশ করে।

কিন্তু এর ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই সব খবরে পানি ঢেলে দেন ট্রাম্প নিজেই।

আরেকটি টুইটে তিনি লেখেন– ‘তিনি (বাইডেন) শুধু ভুয়া সংবাদমাধ্যমের চোখে জিতেছেন। আমি কিছুই স্বীকার করিনি। আমাদের এখনও অনেক পথ পাড়ি দেয়া বাকি আছে। এটি ছিল একটি পাতানো নির্বাচন।’

রোববার সকালের প্রথম টুইটটিতে ট্রাম্প লেখেন– ভোট জালিয়াতির কারণে তিনি নির্বাচনে জিতেছেন। নির্বাচনী পর্যবেক্ষণকারী কোনো ব্যক্তি বা সংস্থাকে ভোট গণনায় যেতে দেয়া হয়নি। চরম বামপন্থী মালিকানাধীন বা নিয়ন্ত্রণাধীন কিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃত্ববাদী কায়দায় ভোট গণনার কাজ তদারকি করেছে। এদের দুর্নাম রয়েছে, এসব কাজ করার জন্য তারা মোটেও উপযুক্ত নয়। তারা টেক্সাসে কাজ পাওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হয়নি (যেখানে আমি বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছি), ভুয়া ও নীরব গণমাধ্যম এবং আরও অনেক কিছু এর সঙ্গে জড়িত ছিল!’

ট্রাম্পের এই টুইটের পর রয়টার্স, এনবিসি, সিএনএনসহ যুক্তরাষ্ট্রের আরও কয়েকটি সংবাদমাধ্যম ট্রাম্পের এই টুইটে ‘পরাজয় স্বীকারের’ বার্তা রয়েছে বলে খবর প্রকাশ করে।

ট্রাম্পের রোববারের টুইটগুলো নিয়ে পরে এনবিসির ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে বাইডেনের সম্ভাব্য চিফ অব স্টাফ রন ক্লাইন বলেন, বাস্তবতাকে যদি ট্রাম্প মেনে নিতে পারেন সেটি খুবই ইতিবাচক। ট্রাম্পের এ টুইটে জো বাইডেনের প্রেসিডেন্ট হওয়া না হওয়ায় কোনো প্রভাব ফেলবে না। কারণ আমেরিকানরা তাকে ইতিমধ্যে প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে দিয়েছেন।

ট্রাম্প জালিয়াতির কথা বললেও নির্বাচন কর্মকর্তারা আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে বলেন, এ নির্বাচন আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে নিরাপদ ছিল।

নিরাপত্তা বিভাগের সাইবার সিকিউরিটি এবং ইনফ্রাস্ট্রাকচার সিকিউরিটি এজেন্সি বলছে, ‘আমরা জানি নির্বাচনের পদ্ধতি নিয়ে অনেক ভুল দাবি আসছে। অনেকে ভুল তথ্য ছড়াচ্ছে। আমরা নিশ্চিত করে আপনাদের বলতে চাই– নির্বাচনের সততা রক্ষায় কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি।’

২০ জানুয়ারি ২০২১ যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনের অভিষেক হওয়ার কথা রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের অঙ্গরাজ্যগুলোর ফল সরকারিভাবে ঘোষিত হয়নি, বেশ কয়েকটি জায়গায় ভোট গণনা এখনও চলছে। এই রাজ্যগুলোর ফল নির্ধারিত হওয়ার পর ১৪ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের ইলেকটোরাল কলেজের বৈঠকে নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষিত হবে।

Sharing is caring!