চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে ঘরে একা পেয়ে বেঁধে  সংঘবদ্ধভাবে চাচীকে ধর্ষণ এবং মোবাইল ফোনে সেই ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করার অভিযোগে দুই ভাতিজাকে আটক করেছে  র‌্যাব। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) অভিযুক্ত দুই ধর্ষক জহিরুল ইসলাম নুরু (৩০) ও আব্দুর রহমান রাজিবকে (২৮) আটক করে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ৯ জুলাই ফরিদগঞ্জে পৌরসভাধীন ভাটিরগাঁও এলাকায়।

পুলিশ জানায়, গৃহবধূর স্বামী ৯ জুলাই রাতে এশার নামাজ পড়তে যাওয়ার পর গৃহবধূ মোবাইল ফোনে তার একমাত্র ছেলের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এ সময় পেছন থেকে ওই দুই যুবক গৃহবধূর মুখে চাপা দিয়ে পাশের বাগানে নিয়ে হাত-পা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং মোবাইল ফোনে ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করে রাখে। বিষয়টি গোপন রাখার জন্য ধর্ষকরা বিভিন্নভাবে জিম্মি করার চেষ্টা করে গৃহবধূকে।

ঘটনাটি গৃহবধূর পরিবার জানতে পেরে র‍্যাবকে জানায়। র‍্যাবের সদস্যরা প্রথমে ফরিদগঞ্জের পৌর এলাকার ভাটিরগাঁও থেকে ১নং আসামী হারুন খানের ছেলে জহিরুল ইসলাম (নুরু) কে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনসহ ১৫ অক্টোবর সকালে আটক করে।

এরপর ২নং আসামী আবুল কালামের ছেলে আব্দুর রহমান (রাজিব) কে কুমিল্লা জেলার পদুয়া বাজার বাসস্ট্যান্ডের বাস কাউন্টার থেকে একই দিন বিকেল ৪টার সময় আটক করে র‍্যাব। তার কাছ থেকে একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। শুক্রবার দুই ধর্ষককে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে র‍্যাব।

ধর্ষকরা আটকের পর গৃহবধূর পরিবার উল্লেখিত দু’জনকে আসামী করে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদ হোসেন জানান, দুই যুবকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ আইনে মামলা দায়ের করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। গৃহবধূকে ডাক্তারী পরীক্ষাসহ ধর্ষণ ঘটনার বিবরণ দেওয়ার জন্য চাঁদপুরের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Sharing is caring!