নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

টানা কয়েকদিনে ভারী বর্ষণে ও বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ায় কচুয়া উপজেলার এলজিইডি অধিদপ্তরের আওতায় ৩টি জনগুরুত্বপূর্ন রাস্তা ভেঙ্গে ধসে পড়ছে। এসব ভাঙ্গা ও ধসে পড়া সড়ক দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলছে। রাস্তা গুলো দ্রুত মেরামতের উদ্যোগ না নিলে পুরোপুরি ভেঙ্গে যানবাহান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে জানা গেছে, কচুয়া উপজেলার পালাখাল-কান্দিরপাড় সড়কের পালাখাল দক্ষিন পাড়া দিঘীর পাড় সংলগ্ন রাস্তাটি ব্যাপক ভাবে ভেঙ্গে পুকুরে তলিয়ে যাচ্ছে। এই রাস্তা দিয়ে পশ্চিম জনপদের হাজার হাজার মানুষ চলাফেরা করছে। রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার কিংবা মেরামতের উদ্যোগ না নিলে বড় ধরনের দূর্ঘটনাসহ প্রানহানি হতে পারে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

কাদিরখিল গ্রামের অধিবাসী ও ডিজে স্মার্ট রিক্সা চালক ওমর আলী জানান, বিগত ৮/১০ বছর ধরে পালাখাল-কান্দিরপাড় সড়কে রিক্সা চালিয়ে আসছি। কিন্তু কিছুদিন ধরে রাস্তাটি পালাখাল অংশে রাস্তাটি ভেঙ্গে যাওয়ায় যাতায়াতের খুব ব্যঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। তিনি আরো জানান, আমাদের কষ্টের শেষ নেই। আমাদের দু:খ কষ্ট দূর করতে রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।

এই জায়গাটি দিয়ে বিগত দিনে বেশ কয়েকটি ও সিএনজি পুকুরে পড়ে বেশ কয়েকজন মারাত্মক ভাবে আহত হয়েছেন। তাই রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের জোরদাবি জানাই।
অপরদিকে বাতাপুকুরিয়া-মাঝিগাছা সড়কের বুধুন্ডা গ্রামে ও মাঝিগাছা- পাথৈর সড়কের চাঁনপাড়া গ্রামে পশ্চিম অংশে রাস্তাটি ভেঙ্গে বেহাল দশায় পরিণত হয়ে পড়েছে।

রাস্তা গুলো যথাযথ পদক্ষেপ না করলে জনচলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়বে। তাই দ্রুত জনগুরুত্বপূর্ন বিবেচনা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উক্ত ৩টি রাস্তার পুকুর অংশ ভেঙ্গে পড়া স্থান গুলো সঠিক ভাবে সংস্কার করার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

Sharing is caring!