মো. হাবিবুর রহমান:

চাঁদপুরের শাহরাস্তি সম্পত্তি আত্মসাতের উদ্দেশ্যে আপন বোন মিনুজা বেগমকে (৫৫) আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শাহরাস্তি থানায় মামলা দায়ের করেছে ভূক্ত ভোগীর একমাত্র মেয়ে খাদিজা আক্তার।

ঘটনার বিবরণে জানাযায়, শাহরাস্তি উপজেলার চিতোষী পূর্ব ইউনিয়নের চিতোষী গ্রামের পদ্মার পাড় বাড়ীর মৃত ইউনুছের মেয়ে মিনুজা বেগমকে গোলাম মোস্তফা নামক ব্যক্তির কাছে তার বাবা পারিবারিকভাবে বিবাহ দিয়ে জামাইকে ঘর জামাই হিসেবে রাখেন। পরবর্তীতে গোলাম মোস্তফা স্ত্রীকে ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়।

মিনুজা বেগমকে হত্যা করে তার সম্পত্তি আত্মসাতের উদ্দেশ্যে গত ১৮ জুন আপন ভাই আবদুর রশিদ চকিদার, আয়ুব আলী, আবদুর রশিদ চকিদারের ছেলে ছেলে রুবেল, আবদুল মজিদ তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা মিনু বেগমকে বেরনাইয়া উপ-স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। খবর পেয়ে মিনুজার একমাত্র মেয়ে খাদিজা আক্তার মাকে বাঁচানোর জন্য ছুটে আসে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় মিনু বেগমকে চাঁদপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

৪ জুলাই মিনুজা বেগমের স্বাস্থের অবনতি ঘটলে এবং চিকিৎনার ব্যয়ভার চালাতে না পেরে মিনুর মেয়ে খাদিজা আকতার মাকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে শাহরাস্তি থানায় চলে যান।

খবর পেয়ে শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহআলম (এলএলবি), অফিসার ইনচার্জ তদন্ত মো. আবদুল মান্নান স্থানীয় সাংসদ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি মহোদয়কে বিষয়টি অবগত করেন। সাথে সাথে মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে সরকারি তহবিল থেকে ২০ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করে মুমূর্ষ মিনুজা বেগমকে এ্যাম্বুলেন্স যোগে সাথে একজন ছাত্রলীগ নেতাকে দিয়ে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে প্রেরণ করেন এবং মিনু বেগমের সকলের চিকিৎসার ব্যয়ভার গ্রহণ করা হবে বলে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন।

আমাদের শাহরাস্তি প্রতিনিধি মো. হাবিবুর রহমান জানান, মাননীয় সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপে অসহায় মিনুজা বেগমের চিকিৎসা হচ্ছে।

অপর দিকে মিনুজা বেগমের মেয়ে বাদী হয়ে আবদুর রশিদ চকিদার, আয়ুব আলী, আবদুর রশিদ চকিদারের ছেলে ছেলে রুবেল, আবদুল মজিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

স্থানীয়রা জানান মিনুজা বেগম একটু সহজ সরল হওয়ায় তার বাবা তার নামে অনেক সম্পদ রেখে গেছে। বোনের সম্পদ দখল করতে না পেরে এবং সম্পদ মিনুজা বেগম তার মেয়ে খাদিজাকে দিয়ে দিতে পারে এমন ধারণা থেকে বোনের উপর দীর্ঘ দিন ধরে অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে আসছিলো ভাই ও ভাগনারা।

শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহআলম এলএলবি জানান, ঘটনাটি অমানবিক। অভিযোগ পাওয়ার পর পরই মিনুজা বেগমের ভাই আবদুর রশিদকে আটক করা হয়েছে। অন্যদেরকেও আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মাননীয় সংসদ সদস্য মিনুজা বেগমের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছে।

Sharing is caring!