নিজস্ব প্রতিনিধি:

হঠাৎ করে আবারে চাঁদপুরে বাড়ছে কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। জনগণের মাঝে অসচেতনার না থাকায় এমনটি মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।

গত কয়েক দিন ধরে চাঁদপুর জেলার ৮ উপজেলাতে কোন না কোন উপজেলায় প্রতিদিনই কোভিড আক্রান্ত রোগী মৃত্যুবরণ করছে। আবার কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়ে মৃত্যৃবরণকারীর রিপোর্টও পজেটিভ আসছে। এ ছাড়াও জেলা সদরের ২৫০ শয্যা বিশিস্ট হাসপাতালেও বাড়ছে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সংখ্যা।

জেলার বিভিন্ন ডাক্তারগণ যদিও নো মাস্ক নো সার্ভিস বলে চিৎকার বা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে কিন্তু সাধারণ মানুষের মাঝে এর সচেতনতা দেখা যাচ্ছেনা।

চাঁদপুরে ২ জুলাই ঢাকা থেকে ৮৮ রিপোর্ট আসে। এর মধ্যে ৫২ জনেরই করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) রিপোর্ট পজেটিভ আসে। নতুন আক্রান্ত ৫২জনসহ জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৭১জন। বুধবার পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ছিলো ৫৯জন। মৃত্যুর পরে মতলবের বেলায়েত হোসেন নামে একজনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তিনিসহ জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬০।

বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) দুপুরে চাঁদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে জানানো হয়, আজকে ঢাকা থেকে রিপোর্ট এসেছে ৮৮টি। এর মধ্যে পজিটিভ ৫২ এবং নেগেটিভ ৩৬টি। নতুন করে শনাক্ত ৫২ জনের মধ্যে চাঁদপুর সদরের ৩২জন, হাইমচরে ২জন, মতলব দক্ষিণে ৪ জন, ফরিদগঞ্জে ৯জন ও হাজীগঞ্জে ৫জন।

সিভিল সার্জন ডাঃ মো. সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, এ পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগী ৯৭১জন। এর মধ্যে চাঁদপুর সদরে ৩৮৪, হাইমচরে ৭৫, মতলব উত্তরে ৬৮, মতলব দক্ষিণে ১০৫, ফরিদগঞ্জ ৯৮, হাজীগঞ্জ ৯৫, কচুয়া ৪৩, শাহরাস্তি ১০১জন।

তিনি আরও বলেন, আজকে পর্যন্ত জেলায় করোনায় আক্রান্তের পর মৃত্যুবরণ করেছেন ৬০জন। এর মধ্যে চাঁদপুর সদরে ১৭, ফরিদগঞ্জ ৭, হাজীগঞ্জ ১৬, শাহরাস্তি ৪, কচুয়া ৫, মতলব উত্তর ৮ ও মতলব দক্ষিণে ৩জন।

Sharing is caring!