হিন্দু কম্যুনিটির মরদেহ দাহ করে শেষ কৃত্যানুষ্ঠান সম্পন্ন করার জন্য হিন্দু কম্যুনিটি দ্বারা প্রতিষ্ঠিত এবং পরিচালিত প্রতিষ্ঠানই শ্মশান ; যেখানে দলমত, উঁচু নিচু – বর্ণ, ধনিদরিদ্র নির্বিশেষে সকল হিন্দু নর – নারীদের মরদেহ সৎকার করা হয়।
কিন্তু আমাদের হাজীগঞ্জের শ্মশানটি ব্যতিক্রম।

হাজীগঞ্জের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, আর্থ – সামাজিক গবেষণা ও উন্নয়ন মূলক প্রতিষ্ঠান ” অন্বেষা ” এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বিগত শতকের ৭০ এর দশকের ছাত্রনেতা, সমাজসেবক বাবু রনজিব কুমার রায় গতরাত ৩.০০ ঘটিকায় হাজীগঞ্জ বাজারস্ত নিজ বাসায় মৃত্যুবরণ করেন। কিন্তু বাবু রনজিব কুমার রায়ের মৃতদেহ হাজীগঞ্জের শ্মশানে দাহ করতে দেয়া হয় নাই। তাঁর স্বজনরা বাধ্য হয়ে গ্রামে নিয়ে সৎকার সম্পন্ন করেন।

বিষয়টি অতীব নিন্দনীয় !

হীনমনাদের সর্বজনিন প্রতিষ্ঠান ” শ্মশান ” এর সাথে যুক্ত থাকা সমীচীন নয়।

বাবু রনজিব কুমার রায়ের মৃত্যুতে ” অন্বেষা ” র পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করছি। মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁর শোকগ্রস্থ পরিবারের সহায় হউন। তাঁকে পরপারে শান্তিতে রাখুন।

সাধারণ সম্পাদক
অন্বেষা। (প্রতিষ্ঠা : ১৯৯৩ খ্রী) এবং

প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হাজীগঞ্জ প্রেসক্লাব

হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।

Sharing is caring!