শাহরাস্তিতে রাতে কলেজ শিক্ষার্থীকে তুলে নিতে এসে সন্ত্রাসী হামলায় ৫জন আহত

শাহরাস্তি প্রতিনিধি॥
চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে এক কলেজ শিক্ষার্থীকে বিয়ের করতে তাকে তুলে নিতে গিয়ে ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছে । সোমবার দিবাগত রাত উপজেলা মেহের দক্ষিণ ইউপির দেবকরা গ্রামের ভূইঁয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।বুধবার সকালে সংশ্লিষ্টরা জানায় অভিযুক্ত আলমগীর আহত অবস্থায় পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থী পরিবার জানায়, ২০১৭ সালে দেবকরা গ্রামের ভুইঁয়া বাড়ীর জনৈক প্রবাসীর মেয়ে (১৮) খিলা বাজার স্কুল এন্ড কলেজে পড়া অবস্থায় একই গ্রামের কালামিয়া বেপারি বাড়ির আবু তাহেরের পুত্র আলমগীর (৩৮) তাকে বিয়ে করতে চেস্টা চালায় । ওই অভিযোগে ২০১৮ সালে জানুয়ারি মাসে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট একটি লিখিত আবেদন করলে একই ইউপির চেয়ারম্যান শফি আহমেদ মিন্টু তার দপ্তরে আলমগীর থেকে একটি মুছলেকায় স্বাক্ষর নেন।
ওই ঘটনার রাতে ওই বাড়ির মৃত মনসুর আলীর ভূঁইয়ার পুত্র (চাচা ) আব্দুল মান্নান (৩৪) প্রকৃতির ডাকে ঘর থেকে বের হতে গিয়ে দেখেন বাড়ির সব ইলেকট্রিক লাইট বন্ধ। ওই সময় শিক্ষার্থীকে তুলে নিতে আসা আলমগীর গংরা চেষ্টা চালায়। এতে তার পরিবারের চাচা আঃ সাত্তার (৩৮) জেঠা শাহাজান (৫০) শিক্ষার্থীর ভাই মোঃ ফখরুল ইসলাম(১৯) গুরুতর জখম হয়। তখন সংঘর্ষ চলাকালে শিক্ষার্থীর চাচা আঃ সাত্তার আগত আলমগীরকে অস্ত্র’সহ জাপটিয়ে ধরলে তার সঙ্গে থাকা মুখোশ পরা ব্যক্তিদের সঙ্গে বাড়ির লোকজনের মধ্যে প্রচ- সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় তার চাচা আঃ সাত্তার ও আলমগীর গুরুতর আহত হন। ওই সময় আলমগীরের সঙ্গে আসা মুখোশধারী ব্যক্তিরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ এ সংবাদ পেয়ে (এসআই) হাবিবুর রহমান, এএসআই শাহাজালাল’সহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। মঙ্গলবার সকালে গুরুতর আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে রেফার করা হয়। আহত আলমগীরকে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তির জন্য প্রেরণ করা হয়। ওই ঘটনায় প্রবাসীর স্ত্রী পারভীন আক্তার (৩৮) বাদী হয়ে আলমগীর বিরুদ্ধে মঙ্গলবার (৯ জুলাই) শাহরাস্তি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খিলা পুলিশ ফাঁড়ির এসআই জাকির হোসেন জানান, তদন্ত স্বাপেক্ষে বাকি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আসামীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।
এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীর মা বলেন, অভিযুক্ত আলমগীর এর পুর্বেও দুটি বিয়ে করেছে। সে এলাকায় নানা সন্ত্রাসী কাজে জড়িত রয়েছে। তিনি এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিচারের দাবী জানান।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares